মাতৃত্বকালীন দাগের কারণ ও প্রতিকার

maro news
মাতৃত্বকালীন দাগের কারণ ও প্রতিকার

সন্তান জন্মদানের সময় একজন নারীর দেহে বিভিন্ন পরিবর্তন আসে। তন্মধ্যে একটি হলো মাতৃত্বকালীন দাগ।কম বেশি সব মায়েদের ক্ষেত্রেই পেট,উরু এসব স্থানে দাগ পড়তে দেখা যায়।সাধারনত সন্তান জন্মের পর কয়েক মাসের ভিতর দাগ চলে যাতে পারে। আবার অনেক সময় সন্তান জন্মের পরও দাগ থেকে যায়। মায়েরা তাই চিন্তিত হয়ে পড়েন। অথচ একটু সচেতন হলে দাগ পড়া ভাবটা কিছুটা হলেও কমিয়ে আনা যায়।


গর্ভাবস্থায় দাগের কারণ প্রধানত চাপের কারণে পেটের চামড়া কারণে ফেটে যাওয়া। এসময় রিলাক্সিন, ইস্ট্রোজেন ও করটিসল হরমোন বেড়ে গিয়ে মিউকোপলিসেকারাইড জমা করে। যা যোজক কলা থেকে পানি শোষণ করে। ফলে যখন টান পড়ে, তখন সহজেই ওই স্থানে দাগের সৃষ্টি হয়ে যায়। কম বয়সী মেয়েদের ক্ষেত্রে মাতৃত্বকালীন দাগ খুব সহজেই পড়ে।


লক্ষণঃ


* লাল রঙের ক্ষত দাগ
* জ্বালাপোড়া ও চুলকানি
* পিগমেন্টেশন কম হওয়া
* দাগের অংশটি গর্তের মতো হয়ে যাওয়া
* লম্বালম্বিভাবে নাভির ওপরের অংশ
থেকে নিচ পর্যন্ত দুই পাশেই দাগ হতে
পারে।
প্রতিকারঃ


সবচেয়ে ভালো কাজ করে মূলত অলিভ
অয়েল। গর্ভকালীন অবস্থায় দুবেলা অলিভ
অয়েল লাগাতে পারেন। অ্যালোভেরা
জেলও ব্যবহার করতে পারেন। এ ছাড়া
ট্রেটনইন ক্রিম, লোশন, ময়েশ্চারাইজার
ব্যবহার করা যেতে পারে। ক্যাস্টর অয়েলও
ভালো কাজ করে। ডাক্তারের পরামর্শ
নিয়ে বাজারে পাওয়া যায় এমন ক্রিমও
ব্যবহার করতে পারেন। মাত্রাতিরিক্ত অসুবিধা হলে অবশ্যই চিকিৎসকের শরনাপন্ন হওয়া উচিত।

   
যেকোন শারীরিক সমস্যায় বাসায় ডাক্তার দেখাতে কল করুন 09678 446688  অথবা 01730 222227 নম্বরে। একজন অভিজ্ঞ ডাক্তার আপনার বাসায় পৌছে যাবে ৩০ থেকে ৯০ মিনিটে।

Dr. Farjina Yeasmeen

Dr. Farjina Yeasmeen

I am Dr. Farjina Yeasmeen. I have completed my MBBS under CU. I have experience of working in Gynae and Obstetrics.I have also worked in a renowned garments factory and have experience of dealing with different patients. I am energetic and positive.  

0 Comments.

leave a comment

You must login to post a comment. Already Member Login | New Register